করোনা ভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকার উপায়| করোনা ভাইরাস কি তা জেনেনিন

করোনা ভাইরাস: বর্তমানে সবাই একটি ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কে দিন গুণছে যার নাম হল “করোনা ভাইরাস“এই ভাইরাসটি সর্বপ্রথম দেখা যায় চীনে| চীনের ইউহান প্রদেশে এই ভাইরাসটি সর্বপ্রথম দেখা দেওয়ার পর সে দেশের অন্যান্য প্রদেশ প্রায় 400 বেশি শরীরে এই ভাইরাসের সন্ধান মেলে| কিন্তু এই ভাইরাসটি বর্তমানে ধীরে ধীরে আমাদের ভারতবর্ষে ছড়িয়ে পড়ছে

করোনা ভাইরাস কি ?
করোনা ভাইরাস

এই ভাইরাসটি ‘নোভেল করোনা’ প্রকৃতির ভাইরাস| বিশেষজ্ঞদের মতে এটি আসলে একটি ফাবিও ভাইরাস| এই ভাইরাসটি রোগীদের শরীরে সংক্রমণ করার পর তাদের শরীরের নিউমোনিয়া তৈরি করে| এই ভাইরাসটি খুবই ভয়ানক হাওয়ায় সারা বিশ্বের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা সতর্কবার্তা জারি

করবে ভাবছে|

করোনা ভাইরাস এর লক্ষন….

সাধারণত জর  দিয়ে এই ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়, এরপরে শুষ্ক কাশি দেখা দিতে থাকে|
যার ফলে এক সপ্তার মধ্যে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায় এবং সকল রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়|
বিশেষজ্ঞদের মতে প্রতি চারজনের মধ্যে একজনের অবস্থা মারাত্মক পর্যায়ে চলে যায় বলে মনে করা হয়|
এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে হালকা ঠান্ডা লাগা থেকে শুরু করে মৃত্যুর সব উপসর্গ দেখা দেয়|
আজ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের সঠিক উৎস অর্থাৎ কোন প্রাণী থেকে সৃষ্টি হয়েছে তা জানা সম্ভব হয়নি| তাই এর রোগ নিরাময় করাটা ততটা সহজ নয়|

কিভাবে এই ভাইরাসটি থেকে বাঁচবেন?

আজ পর্যন্ত আমরা এটাই ভেবে আসছি চীনের কর্তৃপক্ষের নেওয়া পদক্ষেপ থেকেই এই মহামারী ভাইরাসের অবসান ঘটবে| এই ভাইরাস প্রতিরোধ করতে কোন ভ্যাকসিন বা টিকা এখনও আবিষ্কৃত হয়নি| বর্তমানে ভাইরাস টা থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় হল অন্যান্যদের মধ্যে ভাইরাসের সংক্রমণ হতে না দেওয়া| মানুষের চলাচল সীমিত করে দেওয়া| সর্বদা হাত ধুয়ে খাবার খাওয়া এবং নিজের কিছু খেয়াল রাখা
তবে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে এখনই আতঙ্কের কিছু নেই বলে দাবি চিকিৎসকদের একাংশের। এই পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবিলায় সতর্কতায় জোর দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। চিন থেকে ফেরা যাত্রীদের বিশেষভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে বিমানবন্দরগুলিতে।